ব্যাকগ্রাউন্ড

ফেইসবুকে!

আসল দোষী কারা! লাশের উপর দাড়িয়ে নেতা হবার অপচেষ্টাকে ঘৃণা

দেশে একটা করে ঘটনা ঘটে আর একটা করে আন্দোলনের নামে ভাঁড়ামো দেখি আমরা আমজনতা। আলোচনার মুল সুরটা বুঝবার জন্য একটু দুরেই যেতে হবে আমাকে। হুট করে বললে আন্দোলনকারী ভন্ডরা আবার আমাকে বেশী বুঝি তকমা দেবার লোভটা সামলাতে পারবে না। বলে রাখি এইসব আন্দোলনকারীদের মাঝে আবার নতুন এক প্রজাতির উদ্ভব ঘটেছে - যারা আন্দোলনের তাত্বিকদিক বয়ান করে বেরায়, যদিও তাদের দু একদিন লাইনে দাড়ানো ও সেই সুযোগে একটু ইয়ের কাজটা করে নেবার উদ্দেশ্যটাই আসল। 

রানা প্লাজার ঘটনা মনে আছে আপনাদের নিশ্চয়ই। উদ্ধার কাজে এই অধম অল্পএকটু অংশগ্রহণ করেছিলো এই আরকি। পরে অবশ্য আমরা দেখেছি কে কে ছবি বেচলো, পুরস্কার কিনলো, টাকা পকেটস্থ করলো পুনর্বাসনের ফান্ডের নামে। নাম ধাম বলবো না, বললেই চীৎকার শুরু হবে - প্রমাণ দাও! আমি বাপু, আইনও না, আদালতও না আবার তদন্ত সংস্থাও না! তাই চুপ থাকাই শ্রেয়।

প্রসঙ্গে আসি, সেই ঘটনাতে হাজার খানেকের বেশী লোকের প্রাণ গেলো। শাস্তি হিসাবে স্থানীয় ক্ষমতাসীন দলের এমপি পদ হারিয়েছেন, রানার বিচার হয়েছে (যদিও তা আমার দৃষ্টিতে লঘু দন্ড)। মজার বিষয় হলো এতো বড় ঘটনাতে সরকারী কোন সংস্থার কারো লোমও ছিড়া যায়নি অদ্যাবধি। আমি ছাড়া আর কেহও এদের দায়িত্বে অবহেলা, দুর্নিতী, স্বজনপ্রিতী, অনিয়ম এর জন্য শাস্তি দাবী করেনি কোন প্রকার মিডিয়াতে। 

দেশের আইন শৃংখলা রক্ষা বাহিনী ও প্রতিরক্ষা বাহিনীকে প্রবল প্রতিপক্ষ বানানোর ও বলির পাঠা বানানোর অপপ্রয়াস দেখা যাবে প্রতিটি আন্দোলনের আগে ও পরে। এর মুল কারণ আসল ঘটনা আড়াল করা, এই দুই প্রতিষ্ঠান সামনে থাকে বলে সোজা আং্গুল তুলে সস্তা রাজনিতীর অপপ্রয়াস করা ও মুল অপরাধীদের আড়াল করবার চেষ্টা করা হয়। 

মরে গেলেই কেউ তাকে নিয়ে লোক দেখানো আন্দোলনের নামে লাশের রাজনিতীর চর্চা শুরু হয়েছে। ছোট ছোট পাতি নেতাও তৈরী হচ্ছে এর মাধ্যমে। শাহবাগ আন্দোলনের মতো বৃহৎ আন্দোলনেও এই প্রবণতা লক্ষ্য করা গেছে। যে মুখপাত্রের ডাকে সারা দেশের মানুষ রাস্তায় নেমেছে সে ইলেকশনে জামানত হারিয়েছে, আর বাকীরা কেউ ধান্দাতে (বাম অংশ), অধিকাংশই  যার যার নিজের পেশাতে ফিরে গ্যাছে অপচেস্টাকে রুখতে না পেরে। 

প্রকৃত অপরাধী তথা তদারককারীদের যতদিন দ্বায়ী করে কথা বলতে না পারবেন ততদিন লাশের রাজনিতীর অপচেষ্টার প্রতি রইবে ঘৃণা। 

নোট:

প্রশ্ন: কোন স্কুল কলেজের সভাপতি হয় ও তদারকী করে যেনো কারা? 

উত্তর: সরকারী কোন কর্মকর্তা। 

প্রশ্ন: তাদের দ্বায় নাই কোন? 

উত্তর: নাই! (কখনো শাস্তির বা জবাবদিহিতার মুখে পরেছে?)

ফেনীর ঘটনাতে ঘটনা একই। ভালো থাকুন, লাশের রাজনিতী করে নেতা হোন।  

ছবি
সেকশনঃ সাধারণ পোস্ট
লিখেছেনঃ দুরন্ত.. তারিখঃ 13/04/2019 03:51 PM
সর্বমোট 164 বার পঠিত
ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুণ

সার্চ