ব্যাকগ্রাউন্ড

ফেইসবুকে!

রক্তফুল কিংবা রক্তজবা পাখি...

আমার ভেতর থেকে একটি পাখি উড়ে গেলো এইমাত্র!
মুক্ত আকাশ,সবুজবৃক্ষ,বিস্তির্ণ মাঠ,বয়েচলা নদীর ছবি ছিলো পাখিটির স্বপ্নে!
পাখিটির বুকে ছিল একটি ফুটন্ত রক্তজবা!
দখিণা বাতাস ছিলো পাখিটির বন্ধু।
পাখিটি সমস্তদিন শুধু উড়লো আর উড়লো!
এক আকাশ থেকে এক আকাশে উড়তে উড়তে সন্ধ্যার গোধুলিতে এসে,
পাখিটি বসলো, দিগন্ত আচ্ছাদিত এক বটবৃক্ষের ডালে।
সমস্ত দেহ এলিয়ে দিয়ে পাখি তার নিজস্ব ডানায় বোনা রোদের আদরে,
স্বপ্নগ্রস্ত তন্দ্রাচ্ছন্ন সময় পার করছিল।
গাছের ডালে শীতনিদ্রায় ছিলো প্রাগৈতিহাসিক ক্ষুধার্ত অজগর,
বিষে তন্দ্রার ঘোর কেটে গেলো পাখির!
রোদের স্বপ্নবোনা পাখিমন নিলাভ চোখ খোলে দেখলো, 
চারপাশে বিদঘুটে আঁধার ঘেরা অমারাত্রি!
সবুজ মাঠ ঝড়ের গতিতে পেরিয়ে গেলো ভয়ার্ত বিষনীল পাখিটি,
ঘুটঘুটে অন্ধকারে তার আর দেখা হলো না, দিগন্তজোড়া সবুজ মাঠ।
কান্ত শ্রান্ত পাখিটি যখন পিপাসায় কাতর হয়ে, স্বপ্নবোনা নদীটির পাড়ে এলো,
তখন মধ্যরাত্রি!
কান্তিহীন বয়েচলা নদীটি তখন বেঘুর ঘুমে।
পিপাসায় ঘুমন্ত নদীটির পাড়ে পড়ে রইলো তৃষ্ণার্ত মৃতপ্রায় রক্তাক্ত পাখিটি।
ভোরে স্নানঘাটে এসে, ঘুমন্ত জলকে স্পর্স করলো এক গেরস্ত বউ,
নদীটি তরতর করে কেঁপে উঠলো।
চারপাশে তখন নবজাতক ভোর!
মৃতপ্রায় পাখিটিকে রক্তজবা ফুল ভেবে সেই জলে ভাসিয়ে দিলো,
রোদের ব্যকরণ না জানা গেরস্ত বউ।
বন্ধু দখিণা শান্ত জলে ঢেউ তুলে আর্তনাদ করে উঠলো,
আহা!
 

ছবি
সেকশনঃ কবিতা
লিখেছেনঃ শামুক তারিখঃ 28/08/2020
সর্বমোট 203 বার পঠিত
ফেসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুণ

সার্চ

সর্বোচ্চ পঠিত

এই তালিকায় একজন লেখকের সর্বোচ্চ ২ টি ও গত ৩ মাসের লেখা দেখানো হয়েছে। সব সময়ের সেরাগুলো দেখার জন্য এখানে ক্লিক করুন